বিএনসিসি

 দক্ষতার জন্য প্রশিক্ষণঃ

জ্ঞান, শৃঙ্খলা ও একতা—এই মূল মন্ত্রে দীক্ষিত বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের (বিএনসিসি) ক্যাডেটরা। এই ক্যাডেটদের আরও দক্ষ করে গড়ে তুলতে ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে সাভারের বিএনসিসি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে শুরু হয়েছে কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ অনুশীলন ২০১৪, যা চলবে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।
এই প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছে সারা দেশের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের প্রায় ৬০০ জন ক্যাডেট।

আজ বিএনসিসি’র জন্মদিন। ১৯৭৯ সালের ২৩শে মার্চ সকল বাধা বিভক্তি পেরিয়ে ইউটিসি, ইউওটিসি বিলুপ্ত করে বিএনসিসি নাম করনের মাধ্যমে এর অগ্রযাত্রা শুরু হয়।
১৯২৩ সালে ইউটিসি’র যাত্রা শুরু হয়। ১৯২৭ সালে ২৭শে নভেম্বর ইউটিসিতে ঢাকার সকল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়কে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ভিসি প্রফেসর জিএইচ ল্যাংলী প্যারেড উদ্বোধন করেন। ১৯৪৩ সালে ইউটিসি থেকে ইউওটিসি নাম করণ করা হয়। ১৯৫০ সালে ১লা ডিসেম্বর পুর্ব পাকিস্তান সরকার ২২জন অফিসার সহ ৬৪৭জন নিয়ে ইউওটিসি ব্যাটালিয়ন গঠন করে। সেই সময় বিটিএফ অফিসার ক্যাপ্টেন মোঃ মতিউর রহমানকে ব্যাটালিয়ান কমান্ডিং অফিসার নিয়োগ করা হয়। ১৯৫৯ সালে মেজর এবং ১৯৬১ সালে ১৮ অক্টোবর লেঃ কর্ণেল পদোন্নতি দিয়ে ইউওটিসি’র কমান্ডিং অফিসার করা হয় মতিউর রহমান স্যারকে। বিটিএফ অফিসার কর্ণেল মতিউর রহমান ইউওটিসি’র ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব। বিএনসিসি’র এই জন্মদিনে শ্রদ্ধার সাথে আমরা তাঁকে স্বরণ করছি। ১৯৬৬ সালে কলেজ ছাত্রদের পিসিসি স্বাধীনতার পর বিসিসি এবং স্কুল ছাত্রদের নিয়ে জেসিসি গঠন করা হয়। ১৯৭১ সালে ইউওটিসি’র ক্যাডেটরা দেশপ্রেমে অসীম সাহসিকতায় স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং ১১জন (জানা মতে) শহীদ হন। ১৯৭৬ সালে ১৭মার্চ হতে ৩১মার্চ ঢাকা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রথম ক্যাম্প ও রাষ্ট্রপতি প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৭৯ সালের ২৩শে মার্চ সরকারী আদেশ ৪৮/৭/ডি-১/৭৬/২/২ তাং ২৭.০৩.৭৬ বরাত ইউটিসি, ইউওটিসি, পিসিসি, বিসিসি, জেসিসি এবং এনসিসি কে বিলুপ্ত ঘোষনা করে “বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি)” গঠন করা হয়।
আজ বিএনসিসি’র জন্মদিন। দেশপ্রেম, নৈতিক উন্নয়ণ সাধন, নেতৃত্বের গুনাবলী বিকাশ, দেশসেবা, চরিত্র গঠন, শৃঙ্খলা, বহিঃশত্র“র আক্রমনে দেশ রক্ষা, প্রতিরক্ষা বাহিনী সহ দেশের সকল কাজে নেতৃত্ব উপযোগী ব্যক্তিত্ব গঠন করা ও দেশের উন্নয়ন মূলক কাজে, বিভিন্ন জাতীয় বিপর্যয় মোকাবেলা করার জন্য স্বেচ্ছাসেবী সৃষ্টি, দেশের প্রতিরক্ষার ব্যবস্থায় তরুণ ছাত্র সমাজের আগ্রহ সৃষ্টি, ছাত্র তথা যুব সমাজের উন্নয়ন সাধন সর্বপরি নিজেদের মাঝে সহযোগীতা এবং সহমর্মিতা মনোভাব গঠনে বিএনসিসি সৃষ্টি’র মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। আসুন বিএনসিসি’র আজকের জন্মদিনে এই লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে বাস্তবায়নে একসাথে কাজ করি।

AA

শুভ জন্মদিন বিএনসিসি


Genius It Institute

প্রধান শিক্ষককে বার্তা প্রদান

আমাদের ক্যাম্পাস ভিডিও

প্রাতিষ্ঠানিক সুবিধাসমূহ

  • হোস্টেল সুবিধা
  • অনলাইন এস.এম.এস সিস্টেম
  • অনলাইন স্টুডেন্ট প্রোফাইল
  • অনলাইন পিডিএফ বুক লাইব্রেরী
  • অনলাইন ভর্তি ফর্ম
  • মেধাবীদের মাসিক বৃত্তি
  • অনলাইন স্টুডেন্ট রেজাল্ট