অধ্যক্ষের বানী

অধ্যক্ষ

শিক্ষা এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ব্যক্তির আত্ম সচেতনতা বিকাশ নতুন প্রজন্মকে জীবন যাত্রার কলা কৌশল ও নৈপুন্যের অধিকার, মানসিক, শারীরিক ও নৈতিক শিক্ষা দান ও নিয়মতান্ত্রিক জীবন অনুশীলন মাধ্যম সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য উপযুক্ত করা।
সাথে সাথে জীবনকে সফল ও সার্থক করতে বিভিন্ন বিষয়ে যুক্তি গ্রাহ্যতা, সম্ভাবনা, উপযুক্ততা, দৃষ্টিকোণ, মন-মানস, কলা-কৌশল রপ্ত করারও উপলব্ধি জ্ঞানে সনির্ভর করে নিবেদিত করা।
শিক্ষার মাধ্যমে, বিভিন্ন শ্রেনী পেশার উপযুক্ত ব্যক্তি নির্বাচনে দেশ ও জাতীয় আদর্শের ভিত্তিতে চরিত্র গঠন জাতীয় ঐক্য, সংহতি বজায় রেখে বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রের জন্য উপযুক্ত জনশক্তিকে কাজে লাগান ও যোগানের মাধ্যমে দেশ ও রাষ্ট্রের উন্নতি সাধন করা।
বৈজ্ঞানিক, দার্শনিক, সৃজনশীল, কবি, সাহিত্যিক ব্যক্তি এরই মধ্যে থেকে তৈরী বা লালনের মাধ্যমে জাতীয় উন্নতির শিখরে জাতিকে আশিন করা। এই দীর্ঘ প্রক্রিয়ার কাজ জীবন থেকে মৃত্যু পর্যন্ত করার প্রয়োজনই শিক্ষা। এর কোন শেষ নেই, এর কোন অন্ত নেই। প্রক্রিয়াটি অনন্তকালের। কলা, সাহিত্য, সঙ্গীত এর উদ্দেশ্য সমাজে সুন্দর পরিবেশ বা আবাহ সৃষ্টি করে সার্বজনীন ও অনাবিল সুখ দান ও উদ্যমী করা সর্বক্ষেত্র ধর্মীয় সীমানার বাহিরে বা সমাজের সমূহ অকল্যান হয় বা বিরূপ চিন্তা ও পরিবেশ থেকে বিরত রাখার কৌশল রপ্ত করা ও শিক্ষার অন্তরভূক্ত।
এ অঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর মনের গভীরে প্রোথিত ও লালিত ইসলামী অনুভূতিকে মূল্যায়নপূর্বক অর্থাৎ সুন্দর চিন্তা ও মননের মাধ্যমে তৌহিদ ও রেসালতের ভাবের চেতনায় ইসলামী সংস্কৃতিকে সামাজিক শক্তিতে রূপায়িত করতে পারাও শিক্ষার মৌলিক দিক। অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের স্বাধীন শিক্ষার সুযোগ থাকাও স্বাভাবিক, যা ইসলামে সমর্থিত।
সূধী ও বন্ধুগন,
ভাঙ্গা – গড়ার এই সমাজে শিক্ষায় সার্বজনীন জীবন ব্যবস্থা হিসাবে ইসলাম সর্বোত্তম, “ইসলাম” ধর্ম ও বিজ্ঞানের মধ্যে আনায়ন করে সার্থক সমন্বয়। অতীত, বর্তমান, আলো-আঁধার, হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, জীবন-মরন, দুনিয়া ও আখেরাতের মধ্যে রচনা করে সেতু বন্ধন। এই সমন্বয় শিক্ষাই কল্যানকর শিক্ষা।
এ ভাবের ও দৃষ্টিকোনকে অবজ্ঞা বা অবহেলা করে বা ধর্মীয় শিক্ষাকে অবহেলা করে জাতীয় উন্নতি সম্ভব নয়। এতে শুধু শ্রেনীই তৈরী হবে। মনজয় ও রাজ্য জয় এক কথা নয়। নাগরিকের মন-মানসে লালিত অনুভূতিকে মূল্যায়ন করার মধ্যে দিয়ে সার্বিক কল্যানী শিক্ষা ব্যবস্থা ফলদায়ক। বহুমুখী শিক্ষা, বিচ্ছিন্নতা, বিভাষন, বিভক্তির জন্ম দেয় ও দিচ্ছে। রাষ্ট্রের জন্য তা কল্যানকর নয়। এমন অবস্থায় শিক্ষা ব্যবস্থা হোক সকলের জন্য এক ও একক ভাবে অবারিত।
প্রিয় বিজ্ঞজন,
শিক্ষা মানুষের অমূল্য সম্পদ, শিক্ষা মানুষের প্রানশক্তি, জাতির মেরুদন্ড, জীবনের পরশমনি। এর স্পর্শে পূর্নতাপ্রাপ্ত হয় মানব। সমৃদ্ধি লাভ করে, প্রগতির পথে অগ্রসর হয়, পৃথিবীতে আধিপত্য স্থাপন করে। শিক্ষা আলো – অন্ধকারে পার্থক্য শেখায় তেমনি সুশিক্ষা ও কুশিক্ষার মধ্যেও পার্থক্য তৈরী করে। শিক্ষার প্রধান উদ্দেশ্য হল ব্যক্তিত্বের সামঞ্জস্যপূর্ন বিকাশ। ইসলামী শিক্ষা মানুষের ব্যক্তিত্বের সামঞ্জস্যপূর্ন বিকাশ ও উন্নয়ন সাধনে সাহায্য করে ও জ্ঞানের উন্মেষ ঘটায়, আত্মার উৎকর্ষ সাধন করে, সামাজিক দিকে “আদালত” এর পূর্নতা সৃষ্টি করে। মহানুভবতা, ন্যায় – নিষ্টা, মহত্ব, নৈতিক পবিত্রতার শুনাবলীর বিকাশ করে। ঐক্য, ভ্রাতৃত্ব, সৌহার্দ্য গুন সৃষ্টি করে। শ্রেনী, বর্ন, জাত, গোত্র ও গোষ্ঠী সম্পর্কীয় সংকীর্নতার উর্ধ্বে তুলে। বিশ্ব ভ্রাতৃত্ব, সাম্য, মৈত্রী, জনকল্যান, জনসেবা, সামাজিক ন্যায় – নিতী, উদারতা, প্রেম, ভালবাসা, গনতান্ত্রি মূল্যবোধ, আত্মমর্যাদা জাগরিত করে।
পরিশেষে, শিক্ষা নাগরিকের মৌলিক অধিকার আর শিক্ষা একটি অব্যাহত প্রক্রিয়া, সময় ও প্রয়োজনের প্রেক্ষিতে এর পরিবর্তন ও পরিবর্ধন, সংযোজন, সংশোধন সংষ্কার অনিবার্য।
এই অপরিহার্য শিক্ষার জন্য নিশ্চয় একটি আদর্শ ও নৈতিক দৃষ্টিকোন নির্বাচন করে শিক্ষায় সফলতা আনায়নের সম্মিলিত প্রয়াস করি।
আল্লাহ আমাদের সকলকে কল্যান দান করুন। আমীন।


Genius It Institute

প্রধান শিক্ষককে বার্তা প্রদান

আমাদের ক্যাম্পাস ভিডিও

প্রাতিষ্ঠানিক সুবিধাসমূহ

  • হোস্টেল সুবিধা
  • অনলাইন এস.এম.এস সিস্টেম
  • অনলাইন স্টুডেন্ট প্রোফাইল
  • অনলাইন পিডিএফ বুক লাইব্রেরী
  • অনলাইন ভর্তি ফর্ম
  • মেধাবীদের মাসিক বৃত্তি
  • অনলাইন স্টুডেন্ট রেজাল্ট